,

ইউএনওর বদলীর আদেশ প্রত্যাহারের দাবিতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ

স্টাফ রিপোর্টার : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের জনবান্ধব উপজেলা নির্বাহী অফিসার আমিরুল কায়ছারের বদলীর আদেশ প্রত্যাহারের দাবিতে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে মানববন্ধনের এক পর্যায়ে অবরোধ ও রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে আগুন দিয়েছে এলাকাবাসী। এসময় রাস্তার দু’পাশে প্রায় ১০ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে দূর্ভোগে পড়ে সাধারণ যাত্রীরা।

রোববার সকাল ১১ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত উপজেলার আশুগঞ্জ গোলচত্তর এলাকায় মানববন্ধনে অংশগ্রহন করে এলাকাবাসী। এসময় প্রতিবাদি জনতা গোলচত্তর ও রেলগেইট এলাকায় মহাসড়কে টায়ার জ্বালীয়ে  আগুন দেয় ও মহাসড়ক অবরোধ করে ।  পরে আশুগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এসময় যানচলাচল প্রায় ১ ঘন্টা বন্ধ ছিল

মানববন্ধনে সচেতন এলাকাবাসীর ব্যানারে অংশগ্রহন করেন, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ আশুগঞ্জ কমান্ড, জাগ্রত আশুগঞ্জবাসী, আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, জাদুর শহর আশুগঞ্জ, আশুগঞ্জ উদ্যোক্তা ফোরাম, নবীন যুব সংঘ, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি আশুগঞ্জ, উপজেলার ৭ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত প্রায় দুই শহস্রাধীক লোকজন অংশগ্রহন করেন।

মানববন্ধন শেষে মহাসড়ক অবরোধ করে এক প্রতিবাদ সমাবেশ করে এলাকাবাসী। এসময় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান রেহেনা বেগম, জাগ্রত আশুগঞ্জবাসীর সদস্য সচিব ঈসা খান, আশুগঞ্জ ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি মো. মোবারক আলী চৌধূরী, আশুগঞ্জ সুন্নি জামাতের সভাপতি মো. মহিউদ্দিন মোল্লা, আড়াইসিধা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. সেলিম মিয়া, সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন, চরচারতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিয়াউদ্দিন খন্দকার, তালশহর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু সামা, লালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ম.ম আবুল খায়ের, শরীফপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফ উদ্দিন চৌধূরী, তারুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইদ্রিস হাসান, মুক্তিযোদ্ধা শেখ মো. জসিম, আশুগঞ্জ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শাহীন শিকদার, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান কবির প্রমূখ।

এসময় বক্তারা জানান, অবিলম্বে আশুগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী অফিসার আমিরুল কায়ছারের বদলীর আদেশ প্রত্যাহার করতে হবে। অন্যথায় তারা হরতালসহ আরো কঠোর আন্দোলনের হুসিয়ারী জানান। ইউএনওর বদলী প্রত্যাহার করা না হলে সোমবার সকাল থেকে উপজেলার কোন সভায় যোগদান না করার কথাও জানান চেয়ারম্যানরা।

প্রসঙ্গত, আশুগঞ্জে সরকারী জায়গায় অবৈধভাবে দখল করা স্থাপনা উচ্ছেদ করতে গিয়ে দখলদারদের রোষানলে পড়েন উপজেলা নির্বাহী আিফসার আমিরুল কায়ছার। এরই ধারাবাহিকতায় একটি মিথ্য অভিযোগের প্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারী)  বিকালে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের অতিরিক্ত কমিশনার (সার্বিক) মোমিনুর রশিদ আমিন স্বাক্ষরিত এক আদেশে তাকে বান্দরবন পার্বত্য জেলার আলীকদম উপজেলায় বদলি করা হয়েছে। তাকে বদলির আদেশটি আশুগঞ্জ আসার পর থেকে বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। সাধারণ লোকজন তাকে বদলির বিষয়টিকে অবৈধ দখলদারদের কাছে সততার পরাজয় বলে মনে করছেন।

     এ ক্যটাগরীর আরো সংবাদ