,

কনস্টবেল নিয়োগ প্রক্রয়িায় শতভাগ স্বচ্ছতা বজায় রাখা হবে : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার

স্টাফ রিপোর্টার : ব্রাহ্মণবাড়য়িায় পুলিশের কনস্টবেল নিয়োগ প্রক্রয়িায় শতভাগ স্বচ্ছতা বজায় রাখার কথা জানয়িছেনে জেলার পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার হোসনে খান। এবার পুলিশ সদর দফতর থেকে কনস্টবেল নিয়োগ প্রক্রয়িা শতভাগ স্বচ্ছ করার জন্য সংশ্লিষ্টদের কড়া নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে এসপি জানান ।

মঙ্গলবার দুপুরে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে পুলিশ সুপার বলেন, আমার কাছে কোনো প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধির তালিকা আসেনি। তালকিা এলওে সেটি গ্রহণযোগ্য হবে না। শতভাগ স্বচ্ছতা বজায় রেখে মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে কনস্টবেল পদে নিয়োগ দেয়া হবে বলে তিনি আশ^স্থ করেন।
উল্লেখ্য প্রতি বছরই পুলিশ কনস্টবেল নিয়োগ নিয়ে দেশেরে বভিন্নি স্থানে মোটা অঙ্করে র্অথ বাণিজ্যের অভিযোগ ওঠে। কনস্টেবল পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরই সংঘবদ্ধ দালাল চক্র সক্রিয় হয়ে ওঠে। চাকরির জন্য পাঁচ থেকে সাত লাখ টাকা দিতে হয় দালাল চক্রকে। পাশাপাশি প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধিরাও পুলিশ সুপারদের হাতে নিজেদের পছন্দের চাকরি প্রার্থীদের নাম-ঠিকানা সংবলতি তালিকা ধরিয়ে দেন। ফোন করেন খোদ পুলিশের উর্ধ্বতন অফিসাররাও।

এ প্রেক্ষিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার বলনে, যদি আমার সিনিয়র কোনো অফিসারও কারও জন্য আমাকে ফোন করেন তাহলেও আমি তাকে বলব আমার পক্ষে কোনো কিছু করার সুযোগ নেই। চাকরি প্রার্থী ও স্বজনরা যেন দালাল চক্রের সঙ্গে চাকরির জন্য কোনো প্রকার আর্থিক লেনদেন না করে সেজন্য আমরা মাইকিং করেছি। নানাভাবে তাদেরকে সচেতন করার চেষ্টা করেছি। তারপরও কোনো প্রার্থী যদি আর্থিক লেনদেন করেন এবং সেটি প্রমাণিত হয় তাহলে তার প্রার্থীতা বাতিল হয়ে যাবে।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার সহকারী পুলিশ সুপার আলাউদ্দনি চৌধুরী ও ডিআইও-১ মো. ইমতয়িাজ আহম্মদেসহ জেলায় কর্মরত বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রতিনিধিরা উপস্থতিত ছিলেন।

     এ ক্যটাগরীর আরো সংবাদ