,

ফার্মেসী থেকে ঔষধ কেনাতে বাধ্য করেন সরকারি হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক

স্টাফ রিপোর্টার : ২৫০শয্যা বিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের ১০৪নং কক্ষে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। মাত্র ৫টাকার বিনিময়ে চিকিৎসার পাশাপাশি এই কক্ষ থেকেই ঔষধ সরবরাহ করা হয়। কিন্তু হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসার দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক লিটন চৌধুরী অধিকাংশ ঔষধ তার নিজস্ব দোকান থেকে নিতে নিতে বলেন। তিনি সরকারি হাসপাতালের প্রেসক্রিপশনে ঔষধ লিখে দিলে সেই ঔষধ তার দোকান থেকে সরবরাহ করা হয়।

সরেজমিনে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালের নিচতলায় ১০৪নং কক্ষের সামনে রোগীর ভীর। কক্ষের ভেতরে রোগী দেখছেন চিকিৎসক লিটন চৌধুরী। চিকিৎসককে দেখানো একাধিক রোগীর সাথে কথা বলে জানা যায়, লিটন চৌধুরী তাদের দেখে কিছু ঔষধ হাসপাতাল থেকে দিয়েছেন। পাশাপাশি একই প্রেসক্রিপশনে কিছু ঔষধ লিখে দিয়ে বলেছেন, শহরের কালাইশ্রীপাড়ার মা মেডিকেল কেয়ারে গিয়ে ঔষধ গুলো ক্রয় করতে। এর মাঝে কয়েকজন পুরাতন রোগী জানান, তারা ইতিপূর্বে এই কক্ষে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসককে দেখিয়েছেন। চিকিৎসকের বলা ওই দোকানে গেলে ৬০০ টাকা থেকে হাজার টাকার ঔষধ কিনতে হয়। চিকিৎসক লেখায় ঔষধ গুলো বাধ্য হয়ে কিনতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে হাসপাতালের হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক লিটন চৌধুরী অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ওই ঔষধের দোকানটি আমার নয়। আমি সেখানে বিকেলে বসি।

হাসপাতালের তত্বাবধায়ক শওকত হোসেন বলেন, হাসপাতালে যে ঔষধ তা দিবেন। অন্য কোন নির্দিষ্ট স্থানের কথা বলার নিয়ম নেই।

     এ ক্যটাগরীর আরো সংবাদ