,

শিরোনাম :
আশুগঞ্জে যাত্রা বিরতিকালে শ্যামলীর যাত্রী নিঁখোজ নায়ার কবির দ্বিতীয়বারের মত ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত ভোট কেন্দ্রের পাশে ককটেল বিস্ফোরণ, ভোটারদের মাঝে আতঙ্ক নেশার টাকা না পেয়ে মাকে খুন করলো মাদকাসক্ত মেয়ে পাপিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর নির্বাচন : বিএনপির এজন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ রাত পোহালেই ভোট, ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন আশুগঞ্জে মহিলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নৌকার প্রচারণায় ককটেল বিস্ফোরণ, ৯৬জনের নামে দুই মামলা ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর নির্বাচনে ত্রিমুখি লড়াইয়ের সম্ভাবনা, কাল ভোট রিফাত ও আমানের নেতৃত্বে আবরো উজ্জীবিত সরাইল ছাত্রদল

প্রধানমন্ত্রীর ঘর পেলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ১ হাজার ৯১ জন ভূমি ও গৃহহীন পরিবার

স্টাফ রিপোর্টার : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এক হাজার ৯১ জন ভূমি ও গৃহহীনের হাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার সরকারি ঘরের দলীল ও চাবি হস্তান্তর করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ঘরগুলো প্রায় প্রস্তুত করা হয়েছে।
শনিবার (২৩ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশে সরকারিভাবে নির্মিত এসব ঘর উদ্বোধন করেন। সারাদেশে মডেল আটটি উপজেলার মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়াও ছিল একটি।
এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক জানান, ‘আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় যাদের জমি নেই, ঘর নেই তাদের পুনর্বাসনের জন্য জেলার নয়টি উপজেলায় সরকারি খাস জমিতে এইসব ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। জেলায় মোট এক হাজার ৯১টি ঘরের মধ্যে সদর উপজেলায় ৩২টি, বিজয়নগরে ১০০টি, সরাইলে ১০২টি, নবীনগরে ৪৮৫টি, নাসিরনগরে ৯১টি, বাঞ্ছারামপুরে ৬৪টি, আশুগঞ্জে ৬৮টি, কসবায় ১০৪টি ও আখাউড়া উপজেলায় ৪৫টি পরিবার সরকারি এই ঘর পেয়েছেন। ইতোমধ্যেই এসব ঘর নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। জেলা প্রশাসনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ঘরগুলো নির্মাণ করা হয়েছে।’
প্রতিটি ভূমিহীন পরিবারকে দুই শতক সরকারি জমির ওপর এক লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে দুই কক্ষ, একটি পাকঘর, একটি ওয়াশরুম ও একটি বারান্দা বিশিষ্ট আধা পাকা ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। প্রতিটি ঘরের আয়তন ৩৯৪ বর্গফুট। এর আগে সুবিধাভোগী ভূমি ও গৃহহীনদের নামে ভূমির দলিল রেজিস্ট্রি সম্পন্ন করা হয়েছে।
তিনি আরও জানান, কয়েকটি আশ্রয়ন প্রকল্পের সামনে খোলা মাঠ রয়েছে। ইতোমধ্যেই নির্মাণ করা প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে। পানির সমস্যা সমাধানে প্রকল্পে টিউবওয়েল বসানো হয়েছে।
জেলা প্রশাসক জানান, নির্মাণ করা ঘর ভূমিহীনদেরকে বুঝিয়ে দেওয়ার পর দ্বিতীয় পর্যায়ে যাদের ভূমি ও ঘর নেই (ক-শ্রেণি) তাদের জন্য ছয় হাজার এবং যাদের ভূমি আছে ঘর নেই (খ-শ্রেণি) তাদের জন্য নয় হাজার ৭৯১টি ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হবে।

     এ ক্যটাগরীর আরো সংবাদ